স্বামির মনেও একটি আক্ষেপ থেকে যায় যে, সে তার স্ত্রীর সাথে স’হবা’সে পেরে উঠলো না। স’হবা’সের ক্ষেত্রে সে তার আ’নন্দ ক’ষ্ট দেওয়া ছাড়া আর কিছুই দিতে পারলো না।

এরূপ আক্ষেপ সৃষ্টি হওয়াতে অনেক স্বা’মী ধীরে ধীররে স’হবা’সের সাহস হা’রিয়ে ফে’লে, ফলে ধীরে ধীরে তার স’হবা’সের আ’গ্রহ হ্রাস পায় এবং যখনই স’হবা’স করতে যায়, দেখা যায় যে, তার ঐ চিন্তার কারণে বী’র্যপাত পূর্বের তুলনায় আরো তাড়াতাড়ি হয়ে গেছে। এজন্য স্বা’মীকে স্ত্রীর বী’র্যপাত তার থেকে দ্রুত ঘটাতে নিম্মোক্ত তদবীর গ্রহণ করতে হবে। এতে সে তার স্ত্রীর সাথে স’হবা’সে জয়ী হতে পারবে।

১ বিশুদ্ধহিং আধা তোলা, চামিলির তেলসহ কোনো পাত্রে গরম করে একটু গাঢ় করবে। স’হবা’স করার পূর্বে ঐ তেল পু’রুষাঙ্গে মালিশ করে স’হবা’স করবে। এর দ্বারা স্বা’মীর আগেই স্ত্রীর বী’র্যপাত হবে এবং স্ত্রীর মনে অধিক জম্মাবে। এমনকি স’হবা’সের সময় উভ’য়ে আত্মহারা হবে।

২ চৌকিয়া সোহাগা ও আরবী গদ, এ দু’টি আ’গুনে খৈ করে ফুটিয়ে গুড়ো করে পানির সাথে গুলে বটিকা তৈরী করবে। যখন স’হবা’স করার প্রবল ইচ্ছা হবে, তখন ঐ বটিকা ভেঙ্গে মুখে থুথুতে গুলে পু’রুষাঙ্গে প্রলেপ দিয়ে স’হবা’স করলে স্ত্রীর বী’র্য স্বামির আগেই বের হয়ে যাবে এবং স্ত্রী তার স্বা’মীর প্রেমানুরাগী হয়ে চিরকাল থাকবে। এটিও এ কাজের জন্য খুবই কার্যকরী।

শতকরা ৭৫ শতাংশ না’রী সপ্তাহে তিনবারের অধিক যৌ’ন মি’লন চান। সম্প্রতি ৫০০ না’রীর উপর জরিপ চা’লিয়ে এ ত’থ্য পেয়েছে।

১ জরিপের ফলাফলে বলা হয়, শতকরা ৫৩ শতাংশ না’রীই বিদ্যমান অবস্থার চেয়ে বেশিবার যৌ’ন মি’লন করতে চান। যার মধ্যে ৭৫ শতাংশ না’রী চান সপ্তাহে তিন বারের চাইতে বেশিবার যৌন মি’লন এবং ১৩ শতাংশ চান ছয় বারের বেশি।

২ জরিপে উঠে এসেছে না’রীদের অ’র্গাজমের ত’থ্যও। শতকরা ৩৯ শতাংশ না’রী বলেছেন যৌ’ন মি’লনের সময় তাদের অন্তত একবার অ’র্গাজম হয়। যেখানে ১০ শতাংশ না’রীর হয় একাধিক বার।

৩ যৌ’ন মি’লনের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বি’ষয় কী এ প্রশ্নের জবাবে ৫৩ শতাংশ না’রীই বলেছেন, মা’নসিক সম্পৃক্ততা। এর পরের অবস্থানেই ছিল উ’ত্তেজনা। যা ছিল ২৩ শতাংশ না’রীর মতামত।

৪ যৌ’ন মি’লনের পক্ষে সবচে বড় বাঁ’ধা কোনটি? এমন প্রশ্নের জবাবে ৪০ শতাংশ না’রীই দোষারোপ দিয়েছেন মা’নসিক চা’পকে।

বর্তমানকার দিনে অনেক পু’রুষের যৌ’ন জীবন ততোটা সুখকর নয়। এর প্রধান কারণ নিজের মনের দু’র্বলতা, অ’বৈধ যৌ’নজীবন চর্চা এবং প’র্যাপ্ত খাদ্য খাবারের ঘাটতি।আজ আপনার ডক্টরের আর্টিকেলযে খাবার খেলে পু’রুষের লিঙ্গ মোটা হয়তার উপর। চলুন শুরু করা যাক।

বেশি পরিমাণ প্রা’ণিজ-ফ্যাট আছে এ ধরনের প্রাকৃতিক খাদ্য আপনার যৌ’নজীবনের উন্নতি ঘটায়। যেমন, খাঁটি দু’ধ, দু’ধের সর, মাখন ইত্যাদি। বেশিরভাগ মানুষই ফ্যাট জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলতে চায়। কিন্তু আপনি যদি শ’রীরে সে’ক্স হরমোন তৈরি হওয়ার পরিমাণ বাড়াতে চান তাহলে প্রচুর পরিমাণে ফ্যাট জাতীয় খাবারের দরকার। তবে সগু’লিকে হতে হবে প্রাকৃতিক এবং স্যাচুরেটেড ফ্যাট।
ঝিনুক

আপনার যৌ’নজীবন ময় করে তুলতে ঝিনুক খাদ্য হিসেবে খুবই কার্যকরী। ঝিনুকে খুব বেশি পরিমাণে জিঙ্ক থাকে। জিঙ্ক শুক্রাণুর সংখ্যা বৃ’দ্ধি করে এবং লিবিডো বা যৌ’ন-ইচ্ছা বাড়ায়। ঝিনুক কাঁচা বা রান্না করে যে অবস্থাতেই খাওয়া হোক, ঝিনুক যৌ’নজীবনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

অ্যাসপারাগাস আপনার যৌ’ন ইচ্ছা বাড়াতে চাইলে যেসব প্রাকৃতিক খাবার শ’রীরে হরমোনের ভারসাম্য ঠিক রাখে সেগু’লি খাওয়া উচিত। যৌ’নতার ক্ষেত্রে সবসময় ফি’ট থাকতে চাইলে অ্যাসপারাগাস খেতে শুরু করুন।
কলিজা

অনেকেই কলিজা খেতে একদম পছন্দ করে না। কিন্তু আপনার যৌ’ন জীবনে খাদ্য হিসেবে কলিজার প্রভাব ইতিবাচক। কারণ, কলিজায় প্রচুর পরিমাণে জিঙ্ক থাকে। আর এই জিঙ্ক শ’রীরে টেস্টোস্টেরন হরমোনের মাত্রা বেশি পরিমাণে রাখে।

যথেষ্ট পরিমাণ জিঙ্ক শ’রীরে না থাকলে পিটুইটারি গ্রন্থি থেকে হরমোন নিঃসৃত হয় না। পিটুইটারি গ্রন্থি থেকে যে হরমোন নিঃসৃত হয় তা টেস্টোস্টেরন তৈরি হওয়াতে সাহায্য করে। তাছাড়া জিঙ্ক এর কারণে আরোমেটেস এনজাইম নিঃসৃত হয়। এই এনজাইমটি অতিরিক্ত টেস্টোস্টেরোনকে এস্ট্রোজেনে পরিণত হতে সাহায্য করে। এস্ট্রোজেনও আপনার যৌ’নতার জন্য প্রয়োজনীয় একটি হরমোন।

ডিম

ডিম সেদ্ধ হোক কিংবা ভাজি, সব ভাবেই ডিম যৌ’ন স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী একটি খাবার। ডিমে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন বি-৫ ও বি-৬ আছে যা শ’রীরের হরমোনের কার্যক্রম ঠিক রাখে এবং মা’নসিক চা’প কমাতে সাহায্য করে। প্রতিদিনের সকালের নাস্তায় একটি করে ডিম রাখু’ন। এতে আপনার শ’রীর শক্তি পাবে এবং যৌ’ন ক্ষ’মতা বৃ’দ্ধি পাবে।

রঙিন ফল

যৌ’ন স্বাস্থ্য ভালো রাখতে চাইলে প্রতিদিন খাবার তালিকায় রঙিন ফলমূল রাখু’ন। আঙ্গুর, কমলা লেবু, তরমুজ, পিচ ইত্যাদি ফল যৌ’ন ক্ষ’মতা বৃ’দ্ধির জন্য অত্যন্ত উপকারী। ইউনিভার্সিটি অফ টেক্সাসের মেডিকেল টিমের গ’বেষ’ণা অনুযায়ী একজন পু’রুষের প্রতিদিনের খাবার তালিকায় অন্তত ২০০ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি থাকলে তার স্পার্মের কোয়ালিটি উন্নত হয়। আবার টেক্সাসের ইউনিভার্সিটির মতে তরমুজ শ’রীরে যৌ’ন উদ্দীপনা বৃ’দ্ধি করে। তারা যৌ’ন উদ্দীপক ও’ষুধ ভায়াগ্রার সাথে তরমুজের তুলনা করেছেন।

মিষ্টি আলু

মিষ্টি আলু শুধু শর্করার ভালো বিকল্পই না, মিষ্টি আলু খুব ভালো ধরনের একটি ‘সে’ক্স’ ফুড। আপনার শ’রীর কোনো সবজিতে বিটা-ক্যারোটিন পেলে তা ভিটামিন এ তে রূপান্তরিত করে। এই ভিটামিন-এ না’রীদের যো’নি এবং ইউটেরাসের আকার ভালো রাখে। তাছাড়া এটা সে’ক্স হরমোন তৈরিতেও সহায়তা করে।
কফি

কফি আপনার যৌ’ন ইচ্ছা বাড়ানোতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। কফিতে যে ক্যাফেইন থাকে তা আপনার যৌ’নতার মুড ঠিক রাখে।

ডার্ক চকোলেট

ডার্ক চকোলেটে আছে ফেনিলেথ্যালামাইন নামক একটি উপাদান যা শ’রীরে বাড়তি যৌ’ন উদ্দীপনা তৈরী করে। গ’বেষ’ণায় জানা গেছে যে ডার্ক চকোলেট খেলে স’ঙ্গীর প্রতি আকর্ষণবোধও বেড়ে যায়। এছাড়াও ডার্ক চকোলেটে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আছে। তাই প্রতিদিন শতকরা ৭০ ভাগ কোকোযুক্ত ডার্ক চকোলেটের ২ ইঞ্চির একটি টুকরো খেয়ে নিন। মাত্র ১০০ ক্যালরী আছে এই আকৃতির একটি টুকরোতে যা আপনার যৌ’ন স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী।

ট্রাফল (এক ধরনের ছত্রাক)

ট্রাফলে পু’রুষের যৌ’ন হরমোনের মত একধরনের উপাদান থাকে। কিছু কিছু খাবারে ট্রাফলের এই বিশেষ কেমিক্যাল ব্যবহার করা হয়। যার ফলে, না’রীদের পু’রুষের প্রতি লিবিডো বা যৌ’ন আকাঙ্ক্ষা বৃ’দ্ধি পায়। যেমন ম্যাশড পটেটোতে ট্রাফলের ব্যবহার করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here