গত মঙ্গলবার লাদাখ সী’মান্তে র’ক্তক্ষয়ী সং’ঘর্ষে ২০ জন ভারতীয় সে’না নি’হতের ঘ’টনায় চীন-ভারত স’ম্পর্কে চ’রম উ’ত্তেজনা বিরাজ করছে।

সেই ঘ’টনার জেরে গোটা ভারতজুড়ে চীন বি’রোধী স্লোগান চলছে। শুধু তাই নয়, দলমত নির্বিশেষে চীনা পণ্য বর্জনের ডাক দিচ্ছেন ভারতীয়রা।

পাশাপাশি ভারতের ক্রিকেট বোর্ডও (বিসিসিআই) নানা প্রশ্নের সম্মুখীন হচ্ছে।

ভারতের সংবাদমাধ্যম জি নিউজ জানিয়েছে, আইপিএলের টাইটেল স্পন্সর চীনা মোবাইল প্রস্তুতকারক সংস্থা ভিভো। ২০১৮ সাল থেকে চীনা এই সংস্থাটি আইপিএলে চুক্তিবদ্ধ। যার মেয়াদ শেষ হবে ২০২২ সালে।

যেখানে চীনা পণ্য বয়কটের সি’দ্ধান্ত জানাচ্ছে ভারতীয়রা সেখানে আইপিএলে চীনা কোম্পানির অর্থায়নের বি’ষয়টি প্রশ্নের মুখোমুখি হয়েছে।
এমন পরিস্থিতিতে চীনা কম্পানির অর্থায়ন বন্ধ হবে না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছে বিসিসিআই।

ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের কোষাধ্যক্ষ অরুন ধুমাল জানিয়েছেন, কোনো মতেই আইপিএলে চীনা কোম্পানির অর্থায়নকে ‘না’ বলবেন না তারা। কারণ এতে লাভ ভারতেরই হচ্ছে। তাই আইপিএলের টাইটেল স্পন্সর হিসাবে চীনা কম্পানি ভিভোই থাকছে।

এর ব্যাখ্যায় অরুণ ধুমাল বলেন, এই চুক্তির মাধ্যমে চীনা সংস্থা থেকে বিসিসিআই টাকা পাচ্ছে। সেই টাকা করের মাধ্যমে ভারতের অর্থ ভান্ডারে যোগ হচ্ছে। যা পক্ষান্তরে ভারতেরই লাভ।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম পিটিআইকে দেয়া সাক্ষাৎকারে অরুন ধুমাল বলেন, আবেগের সঙ্গে কথা বললে যুক্তি আগ্রাহ্য করে মানুষ। কিন্তু বাস্তবতা তো ভিন্ন। আর এখানের বাস্তবতা হচ্ছে চীনা কোম্পানির কাছ থেকে পৃষ্ঠপোষকতা নিয়ে আমরা তা চীনাদের জন্য নয়, ভারতীয়দের উপকারে লাগাচ্ছি।

এরপর কিছুটা নমনীয় হয়ে বিসিসিআইয়ের এই কোষাধ্যক্ষ বলেন, তবে আগামীতে কোনো সংস্থার সঙ্গে চুক্তি করলে দেশ এবং দেশবাসীর স্বার্থের কথা অগ্রাধিকার দেবে বিসিসিআই। বিশেষ করে সী’মান্তে ভারতীয় সে’নার ও’পর চীনের আ’ক্রমণের পর আগামী দিনে যে কোনো চীনা সংস্থাকে বর্জন করার পক্ষে বিসিসিআই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here