সদরঘাটে লঞ্চডুবির ঘ’টনায় একের পর এক ম’রদে’হ উ’দ্ধার করছেন উ’দ্ধারকারীরা। মাঝ নদীতে নৌযানে সারি করে রাখা হচ্ছে ম’রদে’হগুলো। প্রিয় মানুষের মৃ’ত্যুতে ধৈ’র্য আর বাধ মানছে না স্বজনদের।

নৌকা নিয়ে ছুটে যাচ্ছেন মাঝ নদীতে সারি করে রাখা ম’রদে’হের কাছে। বুকভাঙা কা’ন্নার কাছে নিজেদের সঁপে দিচ্ছেন প্রিয়হারা স্বজন। স্বজনদের আহাজারিতে ভারী হয়ে উঠেছে বুড়িগঙ্গার আকাশ-বাতাস।

উ’দ্ধার কর্মীরা জানিয়েছেন, ডুব দিলেই মিলছে ম’রদে’হ। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স সদর দফতরের ডিউটি অফিসার রোজিনা আক্তার বলেন, লঞ্চ’টিতে কতজন যাত্রী ছিলেন, এখন আর আনুমানিক বলা যাচ্ছে না। তবে ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা ডুব দিলেই তাদের হাতে পায়ের স’ঙ্গে ম’রদে’হ বাঁধছে।

কোস্ট গার্ড সদর দফতরের মিডিয়া উইং এর কর্মকর্তা লেঃ কমান্ডার হায়াৎ ইবনে সিদ্দিক জানান, এখন পর্যন্ত ৩০ জনের ম’রদে’হ উ’দ্ধার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে পাঁচ জন না’রী, ২৩ জন পুরু’ষ এবং ২ জন শি’শু রয়েছে।

সোমবার (২৯ জুন) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে মুন্সীগঞ্জ থেকে আসা দোতালা ‘মর্নিং বার্ড’ লঞ্চ’টি চাঁদপুর থেকে আসা ময়ূর-২ লঞ্চের ধাক্কায় শ্যামবাজার এলাকার ডুবে যায়। লঞ্চে ৫০ যাত্রী ছিল জানা গেছে।

তবে স্থানীয়দের দাবি, লঞ্চে শতাধিক যাত্রী ছিল। দু’টি লঞ্চের সং’ঘর্ষের পর এ দু’র্ঘ’টনা ঘটে। ঘ’টনাস্থলে উ’দ্ধার কাজ করছেন ফায়ার সার্ভিস, নৌবাহিনী, নৌপু’লিশ, সে’নাবা’হিনী, থানা পু’লিশ ও স্থানীয়রা।

এদিকে লঞ্চ’টি উ’দ্ধারে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিরা কাজ করছেন। এছাড়াও নৌপু’লিশ ও নৌবাহিনী কাজ করছে। উ’দ্ধার কাজে সহযোগিতা করতে নারায়ণগঞ্জ থেকে একটি জাহাজ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here