করো’নার নমুনা পরীক্ষা নিয়ে ভু’য়া রিপোর্ট দেওয়ার মা’মলায় গ্রে’প্তার রিজেন্ট হাসপাতা’লের চেয়ারম্যান মো. সাহেদ ওরফে সাহেদ করিম জা’মিনে ছাড়া পাওয়ার পর আবার দেখা হলে জীবনের অনেক কাহিনি শোনাবেন বলে ত’দন্ত-সংশ্লিষ্ট কর্মক’র্তাদের জানিয়েছেন। জাতীয় দৈনিক সমকালের সাংবাদিক সাহাদাত হোসেন পরশ-এর একটি প্রতিবেদনে এসব নানান ত’থ্য উঠে এসেছে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হেফাজতে জি’জ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে সাহেদ ত’দন্ত-সংশ্লিষ্ট কর্মক’র্তাদের এমন কথা বলেন বলে তারা জানিয়েছেন।

ওই কর্মক’র্তা জানান, কর্মজীবনে তিনি অনেক ধরনের প্র’তারক ও অ’প’রাধীকে সামলেছেন। কিন্তু সাহেদের মতো এত ধূর্ত লোক দেখেননি। তার মা’থায় ‘ক্রিমিনাল বুদ্ধি’ গিজগিজ করে। সব বি’ষয় নিয়েই তার মতো করে যু’ক্তি দেন সাহেদ।

তিনি জানান, গ্রে’প্তারের পর শত শত প্র’তারিত লোক র‌্যা’­বের কাছে আসছেন। তারা প্রতিকার চান। সাহেদ অনেকের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। এখন তারা আইনি সহায়তা চাইছেন।

ত’দন্ত-সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, নিজের অ’পকর্ম ঢাকতে সাহেদ যু’ক্তি দেন- কতজনই তো অ’বৈধ কাজ করে খাচ্ছে। তার কাজ নিয়ে কোনো প্রশ্ন ছিল না। হাসপাতা’লে চিকিৎসা’সেবা দিচ্ছিলেন তিনি। তবে চিকিৎসার নামে অ’নৈতিক বাণিজ্যের স’ঙ্গে কর্মীদের জড়ানোর চেষ্টা করছেন তিনি। যদিও ত’দন্তে জানা গেছে, সব অ’পকর্মের পরিকল্পনা সাহেদের মা’থা থেকেই এসেছিল।

সূত্র আরও জানায়, বিএনপির একজন নেতার স’ঙ্গে ঘনিষ্ঠতার কথা সাহেদ স্বীকার করেছেন। পরে আওয়ামী লীগের অনেকের স’ঙ্গে ঘনিষ্ঠতার কথা জানান। রাজনীতিক নেতা হয়ে ওঠার বড় স্বপ্ন ছিল তার।

জানা গেছে, সাহেদের অ’বৈধ অর্থের অনুসন্ধান চলছে। বিদেশে টাকা পা’চার করেছেন কিনা, তা নিয়েও চলছে অনুসন্ধান। সাহেদের স্ত্রী’, বিশ্বস্ত কর্মী ও আরও কয়েকজন স’ন্দে’হভাজনের নামে-বেনামে থাকা ব্যাংক হিসাব খতিয়ে দেখা হবে।

প্রস’ঙ্গত, গত বুধবার সাতক্ষীরার সীমান্ত এলাকা থেকে অ’স্ত্রসহ সাহেদকে গ্রে’প্তার করে র‌্যা’­ব। পরে বৃহস্পতিবার তাকে আ’দালতে হাজির করে রি’মান্ড আবেদন করা হলে আ’দালত সাহেদকে জি’জ্ঞাসাবাদে ১০ দিনের রি’মান্ড মঞ্জুর করেন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here