মৌলভীবাজার কুলাউড়া উপজেলায় বেড়াতে আসা এক কিশোরীকে (১৭) ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে তিন যুবকের বিরুদ্ধে।

মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) রাতে কর্মধা ইউনিয়নের মনছড়ায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় বুধবার (১৪ অক্টোবর) তিন যুবককে আটক করেছে কুলাউড়া থানা-পুলিশ।

গণধর্ষণের শিকার ওই কিশোরীর বাড়ি নোয়াখালী। সে কুলাউড়ার জয়পাশা এলাকায় তার সৎবাবার বাড়িতে বেড়াতে এসেছিল।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) রাতে ওই কিশোরীর সৎবাবা তিন হাজার ১০০ টাকার বিনিময়ে তাকে ওই তিন যুবকের হাতে তুলে দেয়। ওই তিন যুবক কিশোরীকে মনছড়া এলাকার এক বাড়িতে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

বুধবার সকালে বিষয়টি মনছড়ার স্থানীয় লোকজন জানতে পেরে পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে এ কিশোরীকে উদ্ধার করে।

পুলিশ জানায়, ঘটনার মূল আসামি কিশোরীর সৎবাবা ইমরান হোসেন পলাতক রয়েছে। তবে অভিযুক্ত তিন যুবককে আটক করা হয়। কুলাউড়া থানার ওসি ইয়ারদৌস হাসান জানান, এ ব্যাপারে থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

আরও পড়ুন= ‘সিলেটে নির্যাতনে অভিযুক্ত পুলিশের বিরুদ্ধে সুষ্ঠু তদন্ত হবে’

সিলেটে পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনের ঘটনায় অভিযুক্ত পুলিশের বিরুদ্ধে সুষ্ঠু তদন্ত হবে, দোষীকে অবশ্যই বিচারের মুখোমুখি করা হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

বুধবার (১৪ অক্টোবর) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, গুজব প্রতিরোধে ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম কর্তৃপক্ষের কাছে তথ্য চাইলে মাঝে মাঝে সহযোগিতা পাওয়া যাচ্ছে। কেউ কেউ নিরাপত্তা বাহিনী, আদালত নিয়েও অনেকে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে।

তিনি বলেন, ধর্ষণের বিচার সুষ্ঠুভাবে হওয়ার জন্য তদন্তে সঠিকভাবে করার উপর গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান সাংবাদিকদের বলেন, বিচার সেটা আমাদের হাতে নয় এটা আদালত সিদ্ধান্ত নিবে এবং তারাও তাড়াতাড়ি বিচারের ব্যবস্থা নিবে বলে জানিয়েছেন। তারা এই সমস্ত ক্ষেত্রে বিচার ব্যবস্থা তাড়াতাড়ি করবেন।

তিনি আরও বলেন, আমি মনে করি এই আইনটি পাশ হয়েছে, আপনারা দেখেছেন এসিড নিক্ষেপ একটা রেগুলার প্র্যাকটিস এর মত হয়ে গিয়েছিলো সেই এসিড নিক্ষেপ এর ব্যাপারে আমরা যখন সর্বোচ্চ সাজা ঘোষণা করলাম এবং ২/১ টা রায় ও দিলাম তখন থেকে কিন্তু কমে গিয়েছিলো। তো আমিও সেটাই মনে করি যে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড হোক, এবং এটা কমে যাক এবং এই নির্যাতন থেকে নারীরা যেন মুক্তি পাই সেজন্য এই ব্যবস্থা করা হয়েছে।

ভুক্তভোগীরা সঠিক ভাবে বিচার পায় কিনা সে বিষয়ে প্রশ্ন করলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, দেখুন আমরা সঠিক বিচার ব্যবস্থা করার চেষ্টা করছি। যারা অনিয়ম করছে তাদের বিরুদ্ধে আমরা ব্যবস্থা নিচ্ছি। আমরা আরও সক্ষমতা ও দক্ষতা বাড়ানোর জন্য সিআইডি, পিবিআই তৈরি করেছি। যখন পুলিশ পারছে না তখন সেটা পিবিআই এর কাছে দিয়েছি সিআইডি এর কাছে দিয়েছি। আপনারা দেখেছেন কতগুলো জটিল সমস্যার সমাধান করেছে সিআইডি ও পিবিআই।

তিনি বলেন, আমাদের উদ্দেশ্য হল সবাই যেন সঠিক বিচার পায় সেদিকে লক্ষ্য রাখা। প্রধানমন্ত্রী আমাদেরকে সেভাবেই দিক নির্দেশনা দিয়েছেন। উন্নয়নের সাথে সাথে আমাদের আইন ব্যবস্থাও উন্নয়ন করার ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী জোর দিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here