যশোরের মনিরামপুরে আবু দাউদ নামে এক কবিরাজের বি’রুদ্ধে ভিক্ষুকের দুই মেয়েকে হাত-পা বেঁ’ধে ধ’র্ষ’ণের চেষ্টার অ’ভিযোগ উঠেছে। শনিবার সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে ঝাড়ফুঁকের নামে আবু দাউদ কবিরাজ তাদের ধ’র্ষ’ণের চেষ্টা চালান।পুলিশ খবর পেয়ে শনিবার গভীর রাতে দুই মেয়েকে উ’দ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। এ ঘটনায় রোববার কবিরাজের বি’রুদ্ধে মা’মলা করা হয়েছে। তবে পুলিশ কবিরাজ আবু দাউদকে আ’টক করতে পারেনি।

মা’মলার ত’দন্তকারী কর্মকর্তা এসআই জিয়াউল হক জানান, যশোর সদর উপজে’লার বসুন্দিয়া ইউনিয়নের ঘুনি গ্রামের খলিলুর রহমানের ছেলে আবু দাউদ প্রায় ৩০ বছর আগে ইত্যা গ্রামের আবদুল আজিজের মেয়েকে বিয়ে করে ঘরজামাই থাকেন। আবু দাউদ দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় কবিরাজী এবং ঝাড়ফুঁক দিয়ে আসছিলেন। শনিবার সকাল ১১টার দিকে দাউদ কবিরাজ ইত্যা ঋষিপল্লির এক ভিক্ষুক দম্পতির বাড়িতে যান তার স্বামী পরিত্যক্তা মেয়েকে(১৭) ঝাড়ফুঁক দিতে। এ সময় বাবা-মা বাড়িতে ছিলেন না। আবু দাউদ বাড়িতে গিয়ে ভিক্ষুক দম্পতির আরেক মেয়ের (১৩) হাতে ১০ টাকা দিয়ে পাশের দোকান থেকে খাবার কিনতে আনতে বলেন।

আহাদ আলী জানান, মেম্বারের কাছ থেকে ঘটনা শোনার পর গ্রাম পুলিশ পাঠানো হয় দাউদ কবিরাজকে আ’টকের জন্য। কিন্তু পা’লিয়ে যাওয়ায় তাকে আ’টক করা সম্ভব হয়নি। ফলে ওই রাতেই বি’ষয়টি থানার ওসিকে ফোনে জানানো হয়। মনিরামপুর থানার ওসি (সার্বিক) রফিকুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে রাত তিনটার দিকে ঋষিপল্লিতে গিয়ে ওই দুই মেয়েকে উ’দ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে।

সহকারী পুলিশ সুপার (মনিরামপুর সার্কেল) সোয়েব আহমেদ খান জানান, ধ’র্ষ’ণচেষ্টার ঘটনায় মেয়ে দু’টির মা বা’দী হয়ে আবু দাউদ কবিরাজের বি’রুদ্ধে মা’মলা করেছেন। পুলিশ দাউদ কবিরাজকে আ’টকের জন্য এলাকায় অ’ভিযান চালাচ্ছে। উ’দ্ধার করা দুই মেয়েকে আ’দালতে পাঠানো হয়েছে জ’বানব’ন্দি দেওয়ার জন্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here