৬ বছরের শিশুকে গণধর্ষণের পর হত্যা করে ফুসফুস বের করে নেয়া হয়েছে। ভারতের উত্তর প্রদেশের কানপুরে এ ঘটনা ঘটে।

এনডিটিভির প্রতিবেদন অনুসারে, হত্যার সঙ্গে কুসংস্কারে বিশ্বাসও জড়িয়ে আছে বলে পুলিশ জানিয়েছে। স্ত্রীর সন্তানধারণের জন্য দরকার একটি শিশুর ফুসফুস। তাই এমন নারকীয় কুসংষ্কার থেকে অপহরণের ছক কষেছিল পরশুরাম কুরিল নামে এক ব্যক্তি।

পরশুরাম কুরিলের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, দিওয়ালির রাতে ঘাতমপুর এলাকা থেকে ওই শিশুটিকে অপহরণ করে অনকূল কুরিল ও বীরেন নামে দুজন। পরে তারা জঙ্গলে নিয়ে গিয়ে শিশুটিকে গণধর্ষণ করে।

গণধর্ষণের পর বের করে নেয়া হয়েছে ৬ বছরের শিশুর ফুসফুস

হেফাজতে ইসলামের নবগঠিত কেন্দ্রীয় কমিটি প্রত্যাখ্যান করে পদবঞ্চিত আল্লামা শফী অনুসারীরা পাল্টা কমিটি গঠনের হুমকি দিয়েছেন।

এ লক্ষ্যে ইতোমধ্যে কয়েক দফা বৈঠক করে বিকল্প কমিটির রূপরেখা চূড়ান্ত করা হয়েছে। আগামী শনিবার নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করার কথা রয়েছে তাদের।

তবে বিকল্প কমিটি গঠন নিয়ে চিন্তিত নয় হেফাজতে ইসলামের বর্তমান কমিটির নেতারা। সদ্যঘোষিত কমিটি নিয়ে ফের ঘুরে দাঁড়ানোর প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন তারা।

গত ১৫ নভেম্বর হাটহাজারী মাদ্রাসায় কওমিপন্থী সারা দেশের প্রতিনিধিদের নিয়ে কাউন্সিল শেষ হওয়ায় দেশ-বিদেশে হেফাজতের সমর্থকরা অনেকটা উজ্জীবিত বলে দাবি করেছেন সদ্যঘোষিত হেফাজতের নতুন কমিটির যুগ্ম-মহাসচিব মাওলানা নাছির উদ্দিন মুনির।

তার দাবি, তৃণমূলের নেতাকর্মী এবং সমর্থকরাও দারুণ উচ্ছ্বসিত। নতুন কমিটিতে ঢাকা থেকে শুরু করে সারা দেশের প্রতিনিধিরা ঠাঁই পেয়েছেন। দেশের প্রখ্যাত আলেম, পীর-মাশায়েখ, ধর্মীয় ব্যক্তিত্বরা রয়েছেন কমিটিতে।

অল্প সময়ের মধ্যে দেশব্যাপী জেলা, উপজেলা পর্যায়ে নতুন কমিটি গঠনের মাধ্যমে ঢেলে সাজানো হবে অরাজনৈতিক এ সংগঠনকে।

নতুন পথচলায় গতি ফিরবে এমন প্রত্যাশা হেফাজতের এই শীর্ষ নেতার। অন্যদিকে আল্লামা শফীর অনুসারী পদবঞ্চিতরা কয়েকদিনের মধ্যে করণীয় ঠিক করে নতুন কর্মসূচি দিতে যাচ্ছে বলে একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে।

সদ্য বিলুপ্ত কমিটির যুগ্ম-মহাসচিব মঈনুদ্দীন রুহি বলেন, আগামী শনিবার ঢাকায় আমাদের নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

বিশেষ মহলের ইঙ্গিতে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে আত্মীয়করণ ও দলীয়করণের মাধ্যমে গঠন করা কমিটিকে অকার্যকর করতে ওই বৈঠকে গৃহীত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

হেফাজতের সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল হক ইসলামাবাদীর দাবি, কাউন্সিলকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে বিরোধীরা নানামুখী তৎপরতা চালালেও কাউন্সিলপরবর্তী সময়ে এর কোনো প্রভাব পড়েনি।

তিনি বলেন, প্রতিষ্ঠার ১০ বছর পর ঐতিহাসিক সম্মেলনের মাধ্যমে হেফাজতের নতুন পথচলা শুরু হয়েছে। সম্মেলনের পর সারা দেশে হেফাজতের নেতাকর্মী এবং সমর্থকরা দারুণ উচ্ছ্বসিত। তৌহিদী জনতাও হেফাজতের ব্যাপারে আশাবাদী।

ইসলামাবাদী বলেন, হেফাজতে ইসলাম কোন রাজনৈতিক দলের পক্ষেও নেই বিপক্ষেও নেই। নাস্তিক মুরতাদবিরোধী এবং ঈমান আকিদা রক্ষায় হেফাজতের ভূমিকা আরও বলিষ্ঠ হবে।

কে কী করল তা নিয়ে আমরা চিন্তিত নই। যে কেউ চাইলে কমিটি গঠন করতে পারে। এতে আমাদের বলার ও করার কিছু নেই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here