বহুল আলোচিত গোল্ডেন মনিরের স’ঙ্গে প্রতিমন্ত্রী কিংবা সং’সদ সদস্যদের কারও স’ঙ্গে তার সম্প’র্ক আছে কিনা, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টায় সড়ক পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সমসাময়িক ইস্যুতে সাংবাদিকদের স’ঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এসব কথা বলেন।

কোনও প্রতিমন্ত্রী শুধু তাই নয়, তার স’ঙ্গে যদি কোনও সং’সদ সদস্যের সখ্যতা থাকে, সেটিও ত’দন্তে বের হয়ে আসবে বলেও জানান তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, গোল্ডেন মনিরের ম’দদদাতাদের খুঁজে বের করতে স’রকার কাজ করছে। অ’পকর্মের স’ঙ্গে আওয়ামী লীগের যারা জ’ড়িত থাকবে, তাদের জন্য দলের দরজা চিরতরে বন্ধ হয়ে যাবে।

উল্লেখ্য, রাজধানীর মেরুল বাড্ডায় মনিরের বাসায় রাতভর অ’ভিযান চা’লিয়ে ২১ নভেম্বর সকালে মনিরকে গ্রে’ফতার করে পু’লিশ। অ’ভিযানে এক কোটি নয় লাখ টাকা, ৫টি বিলাসবহুল গাড়ি, স্বর্ণালংকার, অ’স্ত্র ও মা’দক জ’ব্দ করা হয়। গোল্ডেন মনির একটি রাজনৈতিক দলের অর্থ জোগান দিত বলে জানিয়েছে র‌্যা’ব।

আরও পড়ুন: বিক্রয়কর্মী থেকে ১ হাজার ৫০ কোটির মালিক ‘গোল্ডেন মনির’

এ ছাড়া অ’বৈধভাবে আম’দানি করা দুটি বিলাসবহুল গাড়ি পাওয়া যায়। যার মূ’ল্য তিন কোটি টাকার ও’পরে। এ ছাড়া শোরুমে আরও তিনটি গাড়ি পাওয়া যায়।

নব্বই দশকে গাউছিয়া মার্কে’টের কাপড়ের দোকানের বিক্রয়কর্মী মনির স্বর্ণ চোরকারবারি, হুন্ডি ও ভূমি ব্যবসায়ী হয়ে ওঠেন। রাজউকের কিছু অ’সাধু কর্মকর্তার যোগসাজশে বাড্ডা ও কেরানীগঞ্জে মনিরের দুই শতাধিক প্লটের হদিস পেয়েছে র‌্যা’ব।

র‌্যা’ব জানায়, গোল্ডেন মনিরের আরেকটি পরিচয় আছে, সেটা হচ্ছে ভূমিদস্যু। রাজউকের অ’সাধু কর্মকর্তার স’ঙ্গে যোগসাজশে বিপুল পরিমাণ অর্থসম্পদের মালিক হয়েছে।

ঢাকার শহরের ডিআইটি প্রজেক্ট, এর পাশাপাশি বাড্ডা নিকুঞ্জ উত্তরা এবং কেরানীগঞ্জে ২০০ বেশি প্লট রয়েছে। ইতোমধ্যে ৩০টির কথা তিনি আমাদের কাছে স্বীকার করেছেন।

এর পরে গণমাধ্যমে উঠে আসছে তার পেছনে ম’দদদাতাদের ত’থ্য। বেশ কয়েকটি গণমাধ্যমে এসেছে ‘গোল্ডেন মনির স’রকারদলীয় একজন প্রতিমন্ত্রীকে গাড়ি দিয়েছেন এবং এমপিদের স’ঙ্গে তার যোগসাজশ ছিল। এ ছাড়া তার বাসায় দুই শতাধিক প্লটের কাগজ পাওয়া গেছে বলে জানা গেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here