আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান এবং একজন খেতাবধারী বীর মুক্তিযোদ্ধাকে সত্য বলার অ’পরাধে শো’কজ করা দেশের মুক্তিযু’দ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি অবমাননাকর।

রবিবার (২০ ডিসেম্বর) সকালে স’চিবালয়ে নিজ দপ্তরে ব্রিফিংয়ের সময় এ কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, বিএনপি মুখে গণতন্ত্রের কথা বললেও আপাদমস্তক অগণতান্ত্রিক। যাদের দলের অভ্যন্তরে গণতন্ত্রের চর্চা নেই, তারা রাষ্ট্র পরিচালনায় গণতান্ত্রিক মূ’ল্যবোধ বজায় রাখতে পারবে বলে জনগণ বিশ্বাস করে না। নেতিবাচক রাজনীতির কারণে বিএনপি এখন জনবিচ্ছিন্ন এবং তাদের নেতৃত্ব বহুধাবিভক্ত।

সেতুমন্ত্রী বলেন, মুক্তিযু’দ্ধের বি’রোধিতাকারীদের স’ঙ্গে গো’পন সখ্য রাখায় বিএনপি ক্রমশ জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছে। বিএনপিতে মুক্তিযোদ্ধাদের কোণঠাসা করে রাখার জন্য একটি কুচ’ক্রী মহল সক্রিয় রয়েছে।

দলটি এখন মুক্তিযু’দ্ধের বি’রোধী শ’ক্তির মুখপাত্রে পরিণত হয়েছে। দলীয়ভাবে তারা ভাস্কর্যের অবমাননাসহ দেশে অস্থিতিশীলতা তৈরি করছে এবং অ’পকর্মের ইন্ধ’ন জোগাচ্ছে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ যখন দলের বিভিন্ন পর্যায়ে কমিটি বাণিজ্য এবং মনোনয়ন বাণিজ্যের অভিযোগ আনেন, তখন সেই দলের কর্মী ও জনগণের কাছে দলীয় নেতৃত্বের কোনো গ্রহণযোগ্যতা থাকে না।

প্রস’ঙ্গত, দলীয় শৃঙ্খলাবি’রোধী কর্মকাণ্ডসহ ১১টি অভিযোগ এনে গত ১৫ ডিসেম্বর বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহম’দ ও বিএনপির আরেক ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছিল বিএনপি।

অভিযোগ নাকচ করে শনিবার এক সংবাদ সম্মেলনে হাফিজ দাবি করেন, তার কারণেই বিএনপি ভাঙনের হাত থেকে রক্ষা পেয়েছে।

সংবাদ সম্মেলন করে হাফিজ এও বলেছেন, বিএনপিতে মুক্তিযোদ্ধারা কোণঠাসা হয়ে পড়েছে। কেন এটা হয়েছে সেটা তার প্রশ্ন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here